সদ্যপ্রাপ্ত
রাজশাহী, সোমবার, ২২ অক্টোবর ২০১৮, ৭ কার্তিক ১৪২৫
52 somachar
বুধবার ● ১০ অক্টোবর ২০১৮
প্রথম পাতা » বাংলাদেশ » পূজা মন্ডপে জুয়া বসলে পূজা কমিটি দায়ি থাকবে-
প্রথম পাতা » বাংলাদেশ » পূজা মন্ডপে জুয়া বসলে পূজা কমিটি দায়ি থাকবে-
২৯ বার পঠিত
বুধবার ● ১০ অক্টোবর ২০১৮
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

পূজা মন্ডপে জুয়া বসলে পূজা কমিটি দায়ি থাকবে-

গাজী রাসেল হাসান- ৫২ সমাচার

আসন্ন শারদীয় দূর্গা পূজা উপলক্ষে এক বিশেষ সভা হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার রুহুল আমিনের সভাপতিত্বে উপজেলা মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বুধবার (১০অক্টোবর) সকাল ১১টা থেকে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা নিয়াজ মোর্শেদের উপস্থাপনায় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মাহবুবুল আলম চৌধুরী প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে বিশেষ সভায় সকলের উপস্থিতিতে যে সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়।

সেগুলো হল

০১। পৌরসভা এবং সকল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের প্রতি নির্দেশ ভাড়াটিয়া তথ্য ফর্ম পুলিশ কে জমা দেয়ার জন্য আগামিকাল মাইকিং করবে, নতুন কোন লোক ভাড়াটিয়া হিসেবে আসছে কিনা, নতুন কোন লোক এলাকায় আসছে কিনা এ তথ্য পুলিশকে জানাতে হবে। বাড়ির মালিকরা যদি না জানায় পরবর্তী কোন সমস্যা হলে বাড়ির মালিককে আটক করা হবে। কারন সামনে পূজা আমরা চাইনা পূজাকে নিয়ে কোন মিশনের মত এসে ঝামেলা হোক।

০২। মাদক এবং ইভটিজিং রোধে স্ব স্ব এলাকার পূজা কমিটি এবং স্বেচ্ছাসেবক দল মাদকসেবী এবং ইভটিজারকে প্রতিরোধ করে পুলিশকে খবর দিবে তাৎক্ষণিক মোবাইল কোর্ট গিয়ে ব্যবস্থা নিবে। এ জন্য পুলিশের পাশাপাশি দুটি মোবাইল কোর্ট কাজ করবে তাই কমিটি তাদের সহযোগিতা করতে হবে।

০৩। আনসার ভিডিপি যারা বিভিন্ন মন্ডপে দায়িত্ব পালন করবে তাদের জন্য পূজা কমিটি থাকার জায়গার ব্যবস্থা করবে অপারগতায় উপজেলায় জানানোর অনুরোধ করা হয়।

০৪। স্বেচ্ছাসেবক দল গঠন করে উপজেলা ও থানায় জমা দেয়া।

০৫। ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক নিরাপত্তা দল গঠন কারন কোন সমস্যা হলে পুলিশ কিংবা মোবাইল কোর্টের আগে তারা ঘটনাস্থলে যেতে পারবেন।

০৬। ট্রাকে করে উচ্চ শব্দে ডিজে সম্পূর্ণ নিষেধ মোবাইল কোর্টে আটক করা হবে।

০৭। পূজা কালীন সময়ে রাত ১১টার পর মাইক সহনশীল পর্যায়ে রাখতে হবে কারন সবাই শান্তির পক্ষে।

০৮। বিদ্যুত সরবরাহের ক্ষেত্রে জেনারেটর রাখতে হবে যদিও সার্বক্ষণিক বিদ্যুত রাখার প্রস্তুতি গ্রহন করা হবে।

০৯। পূজা মন্ডপ কেন্দ্রীক জুয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট কমিটি দায়ি থাকবেন।

১০। জিআর চাল মন্ডপ প্রতি ৫শত কেজি নির্ধারণ।

১১। হাসপাতালে জরুরী বিভাগ খোলা থাকবে ফায়ার সার্ভিসের মত।

উপজেলা পূজা কমিটিসহ বিভিন্ন পূজা কমিটির সভাপতি সেক্রেটারী, উপজেলার বিভিন্ন কর্মকর্তা, ইউনিয়নের চেয়ারম্যানবৃন্দ, সাংবাদিকবৃন্দ, থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) শামিম শেখের উপস্থিতিতে সভাপতির বক্তব্যে নির্বাহী অফিসার রুহুল আমিন সিদ্ধান্তগুলি জানিয়ে দেয়ার পর বলেন এ দেশটি শুধু প্রশাসনের নয় এ দেশটি আপনার আমার সকলের তাই সবাই যদি এক সাথে শান্তি শৃংখলা রক্ষার্তে কাজ করি তাহলে কোন দুস্কৃতিকারী কোন কিছু করার সাহস পাবেনা। তাই আসন্ন শারদীয় পূজা শান্তিপূর্ণভাবে সফল ও সাফল্যমন্ডিত করতে সকলকে এক সাথে কাজ করতে হবে। তিনি বলেন পূজার শেষ দিন শুক্রবার জুমার নামাজ নিয়ে সতর্ক থাকতে হবে, জুমার নামাজ কেন্দ্রীক দুস্কৃতিকারীরা সুযোগ নিতে পারে কারন দুস্কৃতিকারীরাও বসে নেই, মাইকিং ও ফেসবুকের মাধ্যমে গুজব ছড়াতে পারে, মসজিদ ও মন্দিরকে সামনে নিয়ে ঝগড়া লাগিয়ে দিতে পারে, বর্তমানে বাংলাদেশে সবচেয়ে খারাপ জিনিস হচ্ছে ফেসবুক কারন এটার দ্বারাই গুজব ছড়িয়ে বড় ধরনের বিশৃংখলা সৃষ্টি করতে পারে। তাই পূজা কমিটির লোকজন স্থানীয় মেম্বার চেয়ারম্যানদের সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখতে হবে যাকে ছোট বড় কোন ধরনের বিশৃংখলা না ঘটে।