সদ্যপ্রাপ্ত
রাজশাহী, সোমবার, ২২ অক্টোবর ২০১৮, ৭ কার্তিক ১৪২৫
52 somachar
শুক্রবার ● ৫ অক্টোবর ২০১৮
প্রথম পাতা » প্রধান সমাচার » ব্রেষ্ট ক্যান্সার সচেতনতা করন লিফলেট বিতরণ ক্যাম্পিং ফোরাম এসডিএ
প্রথম পাতা » প্রধান সমাচার » ব্রেষ্ট ক্যান্সার সচেতনতা করন লিফলেট বিতরণ ক্যাম্পিং ফোরাম এসডিএ
৩১ বার পঠিত
শুক্রবার ● ৫ অক্টোবর ২০১৮
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

ব্রেষ্ট ক্যান্সার সচেতনতা করন লিফলেট বিতরণ ক্যাম্পিং ফোরাম এসডিএ

আয়শা আক্তার লিজা, ৫২সমাচার প্রেসঃ ফোরাম এসডিএ ব্রেষ্ট ক্যান্সার সচেতনতা করন লিফলেট বিতরণ ও ব্রেষ্ট ক্যান্সার  সম্পর্কে সচেতনতা মূলক ক্যাম্পিং অনুষ্ঠিত হয়।ফোরাম এসডিএ কিছু কথাঃ ফোরাম এসডিএ যুব সমাজ দ্বারা পরিচালিত  একটি সংস্থা যার মূল্য উদ্দেশ্য সাধারণ জনগনের সচেতনা বৃদ্ধির মাধ্যমে বিভিন্ন সমস্যা দূর করা। যদিও আমাদের অভিপ্রায় বিভিন্ন সামাজিক সমস্যা যেমনঃ পরিবেশ দূষণ, মাদক, দূর্নীতি, স্বাস্থ্য অসচেতনতা ইত্যাদি দূর করা, আমরা চাই দেশ ও বিশ্ব সমাজের একটি বাস্তবিক পরিবর্তন  আনতে।

ব্রেষ্ট ক্যান্সার বাংলাদেশে আগের চেয়ে অনেক বেশি হচ্ছে।আগে ৪০ এর কম বয়সি রুগী বিরল ছিলেন, আর আজ ১৭ বছরের বালিকাও এই রোগের করুণ শিকার হয়।২০-৩০ বছর বয়সের মাঝে আমরা ব্রেষ্ট ক্যান্সারের রুগী অনেক পাই।
কেন বাড়ছে ব্রেষ্ট ক্যান্সার?

১. প্রথমেই দায়ী করা যায় জন্মনিয়ন্ত্রণকারী পিল, ইনজেকশন, চামড়ার পিল ইত্যাদি কে। এগুলোর মাঝে থাকে ইষ্ট্রোজেন হরমোন যা ব্রেষ্ট ক্যান্সারের জন্য দায়ী।
২. দেশে পাশ্চাত্যের খাবারের প্রচলন হওয়া… ফাস্টফুড, জাংক ফুড, কোল্ড ড্রিংক, বাইরের ভাজা-পোড়া(এগুলোতে খারাপ চর্বি প্রচুর পরিমাণে থাকে)।এছাড়া খাসীর মাংস, অতিরিক্ত গরুর মাংস(অর্থাৎ রেডমিট),বড় চিংড়ি,পাঙ্গাস মাছ,চিপ্স,প্যাকেট জ্যুস ইত্যাদিও ক্ষতিকর। রান্নায় তেল বেশি খাওয়া, পুরানো তেল ব্যবহার করা খুব খারাপ।
৩. মোটা মহিলাদের সংখ্যা বেড়ে যাওয়া।শরীরের মেদে ইষ্ট্রোজেন হরমোন এসট্রাডিওল নামে লুকিয়ে থাকে এবং সময়মত ছোবল মারে।
৪. বইপত্র অনুযায়ী, মাসিক অল্প বয়সে আরম্ভ হয়ে অনেক বয়স পর্যন্ত চললে, ১ম সন্তান বেশি বয়সে জন্মালে, সন্তান না থাকলে ব্রেষ্ট ক্যান্সারের চান্স বেড়ে যায়।।কিন্তু আমাদের দেশের বেশির ভাগ রুগী-ই অনেক ছেলে-মেয়ের মা, অল্প বয়সে বিয়ে ও সন্তান হয়েছে।কাজেই এই থিওরি এখানে মেলেনা।
৫. আমার নিজের মনে হয়, অপুষ্টি আমাদের দেশে ব্রেষ্ট ক্যান্সারের জন্য একটা দায়ী ফ্যাক্টর হলেও হতে পারে।কারণ আমরা মহিলারা সুষম খাবার খুব কম খাই।চীনে একসময় খাদ্যনালীর ক্যান্সার বেশি হওয়ার কারণ ছিল অপুষ্টি।নিয়মিত পুষ্টিকর খাবার নিশ্চিৎ করার পরে সেখানে  ক্যান্সারের হার অনেক কমে যায়।
৬. সিগারেট,বিড়ি, পানের সাথে সাদা তামাক,জর্দা,গুল ইত্যাদির ব্যবহার খুব বিপদজনক।
৭. মা-খালা-নানী-দাদী-ফুপু-কাজিনদের ব্রেষ্ট বা ওভারির ক্যান্সারের ইতিহাস থাকলে রিস্ক একটু বেড়ে যায়।
৮. বিড়ি/সিগারেট / মদ খাওয়া
৯. স্ট্রেসফুল লাইফ

তারই ধারাবাহিতায় আজ ৫ তারিখ রোজ শুক্রবার সকাল ১০টা হতে দুপুর ১২টা অবধি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিক্যাল ভর্তি পরীক্ষার সকল শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সচেতনতা মূলক লিফলেট বিতরণ করা হয়, এবং ব্রেষ্ট ক্যান্সার সম্পর্কে সকলে জানানো হয়।

উক্ত ক্যাম্পিং এ উপস্থিত ছিলেন এ এম রায়হান, মিঠু দেবনাথ, আয়শা আক্তার লিজা, দিপুমনি, লারা বাবু, সুমন, মোঃ তুহিন, আহসান তাহির আলী,  রাফায়েত রোমান, শামীম আরা সুলতানা, জাহিদুল ইসলাম সজিব, জাহিদ হোসেন সপল, রাজেন্দ্র কুন্ড, মোঃ রবিউল ইসলাম, জনি, ইসরাত খান মোহনা,  ফোরাম এসডিএ সকল সদস্য প্রমূখ



পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)