সদ্যপ্রাপ্ত
রাজশাহী, সোমবার, ২২ অক্টোবর ২০১৮, ৭ কার্তিক ১৪২৫
52 somachar
সোমবার ● ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮
প্রথম পাতা » চট্টগ্রাম » জনপ্রিয়তায় এগিয়ে জাহিদুল ইসলাম রোমান
প্রথম পাতা » চট্টগ্রাম » জনপ্রিয়তায় এগিয়ে জাহিদুল ইসলাম রোমান
৪২ বার পঠিত
সোমবার ● ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

জনপ্রিয়তায় এগিয়ে জাহিদুল ইসলাম রোমান

আয়শা আক্তার লিজা, ৫২সমাচার ডেস্ক: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চাঁদপুর-৪ (ফরিদগঞ্জ) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চাইবেন চাঁদপুর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি বর্তমানে জনপ্রিয় যুবনেতা অ্যাড. জাহিদুল ইসলাম রোমান। ফরিদগঞ্জের তৃণমূল পর্যায়ে জনসমর্থনে শীর্ষে অবস্থানকারী এই সাবেক ছাত্রনেতা এবারের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন দৌড়ে সার্বিক অবস্থায় এগিয়ে রয়েছেন।

সাবেক এই জেলা ছাত্রলীগ নেতা ১৯৭৪ সালের ৫ জানুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন ফরিদগঞ্জ উপজেলার চরকুমিরা গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে। তার পিতা হচ্ছেন সাবেক এমপি ও গণপরিষদের সদস্য এবং চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি মরহুম অ্যাড. সিরাজুল ইসলাম। যিনি একজন সৎ ও নির্লোভ রাজনীতিবিদ হিসেবে সর্বমহলে সমাদৃত। অ্যাড. জাহিদুল ইসলাম রোমান ছোটবেলা থেকেই তার বাবার বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডকে পাথেয় হিসেবে গ্রহণ করেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার দৃঢ় সংকল্পে রোমান ১৯৮৭ সালে মাধ্যমিক স্কুলে পড়াশোনা অবস্থায় ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত হন। ’৮৯ সালে এসএসসি পাস করার পর চট্টগ্রাম হাজী মহসিন কলেজে উচ্চ মাধ্যমিকে ভর্তি হলে ছাত্রলীগ করার অপরাধে ছাত্রশিবিরের রোষানলে পড়ে মাত্র ৬ মাসের মাথায় মহসিন কলেজ ছেড়ে দিতে হয় তাকে। ৯০-এর স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে চট্টগ্রাম ও চাঁদপুরে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন জাহিদুল ইসলাম রোমান।

উচ্চ শিক্ষার ধারাবাহিকতার জন্য রোমান চাঁদপুর সরকারি কলেজে ভর্তি হয়েই প্রাণের সংগঠন ছাত্রলীগকে নেতৃত্ব দিয়ে গতিশীল করেন। ১৯৯৭ সালে চাঁদপুর জেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন। এরপর ২০০০ সালে জেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি এবং ২০০৩ সালে জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলন ও কাউন্সিলের মাধ্যমে নবগঠিত কমিটির সভাপতি নির্বাচিত হয়ে ২০১০ সাল পর্যন্ত জেলা ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের নির্যাতন-নিপীড়নের দুঃসময়ে এবং ওয়ান ইলেভেনের সেনাশাসিত সরকারের কঠিন সময়গুলোতে রোমান চাঁদপুরে ছাত্রলীগকে নেতৃত্ব দিয়ে তৃণমূল পর্যন্ত সুসংগঠিত করে রাখেন। জাহিদুল ইসলাম রোমান ছাত্রনেতা হলেও দেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলন-সংগ্রামে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখেন। ২০০৪ সালের ৭ মে এমপি আহসান উল্লাহ মাস্টারকে হত্যার প্রতিবাদে ৯ মে সারাদেশে সকাল-সন্ধ্যা হরতালে চাঁদপুরে পুলিশের নির্মম নির্যাতনের শিকার হতে হয় তাকে। ২০০৭ ও ২০০৮ সালে ওয়ান-ইলেভেনের সরকারের সময় আওয়ামী লীগ সভানেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাকে গ্রেফতারের প্রতিবাদ এবং তার মুক্তির দাবিতে চাঁদপুর শহরে মিছিল-মিটিং করেছে রোমানের নেতৃত্বাধীন ছাত্রলীগ। আর এ অপরাধে তখন সেনাবাহিনীর রোষানল থেকে বেঁচে থাকতে বেশ ক’দিন তাকে আত্মগোপনে থাকতে হয়েছে।

এ ছাড়া রোমানের নেতৃত্বাধীন ছাত্রলীগের সফলতাও আছে অনেক। ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত ৯ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চাঁদপুর-৩ (সদর ও হাইমচর) আসনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ডা. দীপু মনির বিজয়ে এই ছাত্রনেতার নেতৃত্বে ছাত্রলীগ উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখে। যার ফলে স্বাধীনতার ৩৫ বছর পর এ আসনটি আওয়ামী লীগ ফিরে পায়। একইসঙ্গে তখন চাঁদপুর-৪ (ফরিদগঞ্জ) আসনেও আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পক্ষে ব্যাপক গণসংযোগ করেন জাহিদুল ইসলাম রোমান।

শুধু জাতীয় নির্বাচনই নয়, চাঁদপুর ও ফরিদগঞ্জ উপজেলা পরিষদ এবং পৌর ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে জাহিদুল ইসলাম রোমান মুখ্য ভূমিকা রেখে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর বিজয় নিশ্চিত করেন। সর্বশেষ ২০১৬ সালে ফরিদগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর বিজয় অনেকটা তার একক নেতৃত্বে এবং কৌশলে অর্জন হয়েছে বলে ফরিদগঞ্জের সবার মুখে মুখে চাউর রয়েছে। তারপরই তিনি হয়ে উঠেন ফরিদগঞ্জের তারুণ্যের প্রতীক এবং অহঙ্কার।

ইতিমধ্যে ফরিদগঞ্জের প্রতিটি ইউনিয়ন ও গ্রামে অ্যাড. জাহিদুল ইসলাম রোমান তার সামাজিক অবস্থান তুলে ধরতে এবং তার ব্যক্তিগত গ্রহণযোগ্যতা প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছেন। ফলে তার ডাকে আওয়ামী লীগ ও দলীয় অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের নেতারা ছাড়াও সাধারণ মানুষ এগিয়ে আসেন। বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিশন ’৪১ বাস্তবায়ন, ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত ও উন্নত বাংলাদেশ বিনির্মাণে মরহুম পিতা অ্যাড. সিরাজুল ইসলামের যোগ্য উত্তরসূরি হিসেবে আগামী দিনে ফরিদগঞ্জের উন্নয়নে নিজকে নিয়োজিত করতেই তিনি আসছে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী হিসেবে নৌকা প্রতীককে বিজয়ী করতে চান। নির্বাচনী বৈতরণী পার করে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে এই আসনের তিন জেনারেশনের ভূমিকা অন্যদের চেয়ে রোমানের পক্ষে অনেকটা সহজতর হবে। প্রথম জেনারেশন হচ্ছে তার মরহুম পিতার ক্লিন ইমেজের কারণে বয়োবৃদ্ধ জনগণ, দ্বিতীয় জেনারেশন হচ্ছে তিনি যখন জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন সে দীর্ঘ সময়কার প্রজন্ম যারা বর্তমানে ফরিদগঞ্জের প্রায় প্রতিটি ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগ, যুবলীগসহ বিভিন্ন অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের নেতৃত্বে আছেন। তৃতীয় জেনারেশন হচ্ছে বর্তমান প্রজন্ম যারা বর্তমানে ছাত্রলীগ ও যুবলীগ করতে গিয়ে রোমানের নেতৃত্বকে অনুসরণ করেন।

অ্যাড. জাহিদুল ইসলাম রোমান মানবকণ্ঠকে বলেন, আমি আমার মরহুম পিতার পদাঙ্ক অনুসরণ করে দেশ ও জনগণের কল্যাণে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক হিসেবে বঙ্গবন্ধু স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে কাজ করতে চাই।

তিনি আরো বলেন, জন্মসূত্রে ফরিদগঞ্জের মাটি ও মানুষের সঙ্গে আমার নিবিড় সম্পর্ক। ফরিদগঞ্জবাসীর কল্যাণে কাজ করাই আমার স্বপ্ন। আর সে লক্ষ্যেই আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ফরিদগঞ্জে জননেত্রী শেখ হাসিনার মনোনীত নৌকার প্রার্থীর বিজয় নিশ্চিত করতে চাই।

তথ্যঃ মানবকণ্ঠ/এএএম